ই-পেপার মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১
আরিচা-কাজিরহাট নৌরুট

খননের নামে শুভঙ্করের ফাঁকি

রতন বালো
প্রিন্ট ভার্সন
১৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ১২:৪২

যমুনা নদীর মানিকগঞ্জের আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটে নাব্য ফিরিয়ে আনতে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) উদ্যোগ নিয়েছে।

গত কয়েক মাস ধরে ভরা বর্ষা মৌসুম থেকেই ৬টি ড্রেজার দিয়ে পলি অপসারণের কাজ চালাচ্ছে সংস্থাটির ড্রেজিং বিভাগ। তাতেও কোনো সুফল মিলছে না বরং ফল উল্টো এ নৌপথের ফেরি সার্ভিস সচল রাখতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছে ফেরির মাস্টার সুকানিরা। বিষয়টি অনাকাক্সিক্ষত হলেও অস্বাভাবিক নয়। কারণ, এরা মাছের তেলে মাছ ভাজতে গিয়ে এমন বিড়ম্বনার জন্ম দিয়েছে।

যদিও ড্রেজিং করা মাটি নদীতে ফেলার কোনো বিধান নেই তারপরও এই কাজটি করে চলেছে বিআইডব্লিউটিএর ড্রেজিং বিভাগের সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলীরা। নাব্য সঙ্কটের কারণে গত ৮ সেপ্টেম্বর (শুক্রবার) সকাল ৯টা থেকে ২৪ ঘণ্টার জন্য বন্ধ থাকে ফেরি। এ সময় নদী পার হতে আসা পণ্যবাহী ট্রাকগুলো ঘাটে আটকে থাকে এবং দুর্ভোগে পড়েন ট্রাক শ্রমিকরা। পাঁচটি ড্রেজার মেশিন দিয়ে খনন কাজও শুরু করে। কিন্তু এতে কাজের কাজ কিছুই হয়নি।

নদীতে জমা পলি নদীতেই রয়ে গেছে। এ নিয়ে বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশ হয়েছে। কিন্তু কর্তৃপক্ষের নজরে নেই। বা কোনো সাড়া নেই। ফলে ইচ্ছেমতো ড্রেজিং করার খাতা পত্র ঠিক রেখে কোটি কোটি টাকা ব্যাহত করার অভিযোগ উঠেছে।

ড্রেজিং বিভাগের অপরিকল্পিত ও ধীরগতির ড্রেজিং এবং এ নৌপথ থেকে পলি অপসারণে ব্যর্থতার কারণেই এ নাব্য সঙ্কটের সৃষ্টি হয়েছে। এতে ড্রেজিংয়ের নামে সরকারের কোটি কোটি টাকা খরচ হলেও কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না। গত ৯ সেপ্টেম্বর সরেজমিনে আরিচা ঘাট ঘুরে দেখা গেছে, ৩টি ছোট ফেরি দিয়ে যানবাহন পারাপারের চেষ্টা করা হচ্ছে। তাও আবার ঝুঁকিপূর্ণ। আরিচা ঘাটের কাছে চ্যানেল শুরু হওয়ায়, ওয়ান ওয়ে পদ্ধতিতে ফেরি চলাচল করছে। এতে সময় লাগছে অনেক বেশি। ফলে ঘাটে পার হতে আসা গাড়ির সংখ্যা বাড়ছে। দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন যানবাহন শ্রমিকরা।

এছাড়াও স্থানীয় এক ব্যবসায়ী বালু মহাল হিসেবে আরিচাঘাট সংলগ্ন যমুনা নদী এলাকার কিছু অংশ আরিচা ঘাটের অদূরে ইজারা নিয়েছেন। উদ্দেশ্যমূলকভাবে ড্রেজিংকৃত পলি চিহ্নিত জায়গায় ফেলা হচ্ছে। এতে নৌচ্যানেল খননের পর আবার ভরাট হয়ে যাচ্ছে। ফলে তথাকথিত এ ড্রেজিং কোনো কাজেই আসছে না বলে জানান স্থানীয়রা।

ড্রেজিংয়ের মাটি একবার ফেলা হচ্ছে নদীর ভাটিতে। আবার ফেলা হচ্ছে উজানে। ফলে স্রোতের টানে ড্রেজিং করা মাটি আবারও ভরাট করে দিচ্ছে নির্ধারিত নৌ-চ্যানেলে। কাজের কাজ কিছু যে হয়নি-সে কথা স্বীকার করেছে বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি। সরকার দেশের অভ্যন্তরীণ নৌপথের নাব্য রক্ষায় ড্রেজিং মাস্টারপ্ল্যান প্রকল্প গ্রহণ করেছে। এই মাস্টারপ্ল্যান অনুযায়ী ‘বিআইডব্লিউটিএ’র মাধ্যমে ১৭৮টি নদী পুনঃখনন করা হবে। এতে প্রায় ১০ হাজার কিলোমিটার নৌপথের নাব্য ফিরে আসবে।

ড্রেজিং করা হয় নদীতে জমে থাকা পলি অপসারণ করার জন্য। এটা সুষ্ঠুভাবে করা হলে নদীতে পানি প্রবাহ স্বাভাবিক হয়। কিন্তু ড্রেজিং করা মাটি যদি নদীতে পড়ে, তাহলে উদ্দেশ্য পূরণ হবে না। মাঝখান দিয়ে রাষ্ট্রের টাকা গচ্চা যাবে। শুধু যে মানিকগঞ্জের শিবালয়ে যমুনা নদী খননের ক্ষেত্রে এমন অব্যস্থাপনা ও অপরিকল্পিতভাবে কাজ করা হচ্ছে তা নয়। অন্য স্থানেও নদী খননের এমন চিত্রের দেখা মেলে। যমুনা নদীর আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটের নাব্য ফিরিয়ে আনতে যে ড্রেজিংয়ের কাজ চলছে তা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে হবে। ড্রেজিং করা মাটি যেন আবার নদীতেই না পড়ে সেজন্য সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে হবে।

নদী খননের নামে এমন শুভঙ্করের ফাঁকি চলতে দেয়া যায় না। নদীগুলো আমাদের প্রকৃত সম্পদ এগুলোকে বাঁচাতে খনন করতে হবে। নদীর পানি প্রকল্প গ্রহণ করলেই হবে না এটা যেন পরিকল্পনামাফিক চলে সেটা নিশ্চিত করা জরুরি বলে নৌ-বিশেষজ্ঞরা জানান।

এ বিষয়ে রোকেয়া ফেরির মাস্টার মো. আবু সাইদ জানান, দীর্ঘদিন ধরে ড্রেজিং করার পরও পুরান চ্যানেলে নাব্য সঙ্কটের সমাধান না হওয়ায়, আমরা নতুন পথে বিকল্প চ্যানেল দিয়ে ফেরি চালাচ্ছি। এতে প্রায় এক ঘণ্টা সময় বেশি লাগছে এবং জ্বালানি খরচও বেশি হচ্ছে। পূর্বে আরিচা থেকে কাজিরহাট যেতে সময় লাগতো সোয়া ১ ঘণ্টা আর ঘুরা পথে এখন সময় লাগছে সোয়া ২ ঘণ্টা। এভাবে কত দিন চলবে তা বলতে পারছি না।

শিবালয় সাবেক ইউপি সদস্য এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. রফিকুল ইসলাম বলেছেন, ড্রেজিংয়ের নামে পানির নিচে কি করে, সেটা ওরা জানে আর আল্লাহ জানে। যত ফাঁকি-ঝুঁকির কাজ আছে এই ড্রেজিং ইউনিটে। কারণ ড্রেজিংকৃত নদীর মাটি নদীতে ফেলার কোনো বিধান নেই। কিন্তু আরিচাতে যমুনা নদীর ড্রেজিংকৃত নদীর মাটি নদীতেই ফেলা হচ্ছে।

বিআইডব্লিউটিসির আরিচা আঞ্চলিক কার্যালয়ের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার শাহ মুহাম্মদ খালেদ নেওয়াজ বলেন, আরিচা-কাজিরহাট নৌ-রুটে ড্রেজিং করার পরও পূর্বের যে চ্যানেলটি ছিল সেটির নাব্য সঙ্কটের কোনো উন্নতি হয়নি। যে কারণে গত শুক্রবার সকাল থেকে পরের দিন বিকেল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টা আমাদের ফেরি সার্ভিস বন্ধ ছিল। পরবর্তিতে ঘোরা পথে বিকল্প নতুন একটি চ্যানেল দিয়ে আমরা ফেরি সার্ভিস চালু করেছি। এতে সময় বেশি লাগছে এবং জ্বালানি খরচও বেশি হচ্ছে। এসব একাধিকবার চেষ্টা করেই ড্রেজিং সংশ্লিষ্ট কোনো কর্মকর্তা বা কর্মচারীর সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি। তাদের ভাব দেখে মনে হয় এসব ব্যাপারে কথা বলতে তারা যেন মুখে কুলুপ এঁটেছেন।

এছাড়া স্থানীয় এক ব্যবসায়ী বালু মহাল হিসেবে আরিচাঘাট সংলগ্ন যমুনা নদী এলাকার কিছু অংশ আরিচা ঘাটের অদূরে ইজারা নিয়েছেন। উদ্দেশ্যমূলকভাবে ড্রেজিংকৃত পলি চিহ্নিত জায়গায় ফেলা হচ্ছে। এতে নৌ-চ্যানেল খননের পর আবার ভরাট হয়ে যাচ্ছে। ফলে তথাকথিত এ ড্রেজিং কোনো কাজেই আসছে না বলে জানান স্থানীয়রা।

বিআইডব্লিউটিসির আরিচা আঞ্চলিক কার্যালয়ের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার শাহ মুহাম্মদ খালেদ নেওয়াজের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটে ধীর গতিতে ড্রেজিং চলছে। ফলে পলি অপসারণ করতে না পারায় এ নৌপথে ফেরি চলাচল করা সম্ভব হচ্ছে না। ফেরিগুলো দফায় দফায় ডুবোচরে ধাক্কা খাচ্ছে। এতে ফেরির বড় ধরনের ক্ষতি হতে পারে বলে শুক্রবার থেকে ২৪ ঘণ্টা বন্ধ রাখা হয়। তবে সুফিয়া কামাল, বেগম রোকেয়া ও কুঞ্জলতা নামের কম ধারণক্ষমতাসম্পন্ন ফেরি দিয়ে শনিবার সকাল থেকে ফেরি সার্ভিস চালু রাখার চেষ্টা করা হচ্ছে। ড্রেজিং সম্পন্ন হলেই বড় ফেরি দিয়ে স্বাভাবিক ফেরি চলাচল সম্ভব হবে।

এছাড়াও ফেরি ঘাটের দক্ষিণ দিকে অবস্থিত আরিচা লঞ্চ ঘাট পন্টুন। এর অদূরেই চলছে ড্রেজিং। সরু এ নৌপথের মাঝ দিয়ে ফেরি চলাচল অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। এতে যে কোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার আশঙ্কা করছেন তিনি। এ সম্পর্কে জানতে চেয়ে বিআইডব্লিউটিএর ড্রেজিং ইউনিটের নির্বাহী প্রকৌশলী এবং উপ-সহকারী প্রকৌশলী আক্কাস আলীর সাথে ফোনে যোগাযোগ করা হলে সংশ্লিষ্ট কেউ ফোন কল ধরেননি। এছাড়া

এ বিষয়ে বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান কমডোর আরিফ আহমেদ মোস্তফার মুঠোফোনে যোগাযোগ কনা হলে তিনি বলেন, পত্রিকা প্রচার এবং আমাদের সম্পর্কে মিথ্যা গুজব ছড়ানোর জন্য অভিযোগ করে থাকেন। আরিচা-কাজিরহাট নৌরুট সার্বক্ষণিক সচল রাখার জন্য ৬টি ড্রেজার রাখা হয়েছে। তীব্র স্রোতের কারণে ড্রেজিংয়ের স্থানে পলি পরে যায়। তখন নৌপথ ঠিক রাখা যায় না। ড্রেজিংকৃত নদীর মাটি নদীতে ফেলার কোনো বিধান নেই এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, কোথায় নদী খননের মাটি ফেলা হবে কমিটি আছে। তারাই বলে দেন কোথায় মাটি ফেলতে হবে। তবে তিনি বিস্তারিত জানান জন্য প্রধান প্রকৌশলী (ড্রেজিং) রকিবুল ইসলাম তালুকদারের সঙ্গে কথা বলতে বলেন। কিন্তু প্রধান প্রকৌশলীর সঙ্গে গত দুই দিন সকালে এবং বিকেলে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোনো সাড়া দেন না।

এবি/ওজি

দেশ ত্যাগের পরে এলো নিষেধাজ্ঞা

* মতিউরকে পালাতে সহযোগিতা করে প্রভাবশালী সিন্ডিকেট * প্রতিবারই অনুসন্ধান চলা অবস্থায় শেষ হয় কার্যক্রম, দেয়া

পানি বণ্টন চুক্তির নবায়নে ক্ষুব্ধ পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নয়াদিল্লি সফরকালে গত শনিবার গঙ্গার পানি বণ্টন চুক্তি নবায়নের আশ্বাস দিয়েছে

বিশ্ব শান্তিরক্ষায় বাংলাদেশের শান্তিরক্ষী

* রয়েছে সশস্ত্র-সন্ত্রাসীদের রক্তচক্ষু আর এইডস-ইবোলার ঝুঁকি * হাইতি থেকে পূর্বতিমুর, লেবানন থেকে কঙ্গো পর্যন্ত বিশ্বের

চাপ নেই, সঠিক পথেই এগুচ্ছে তদন্ত

ভারতে নিহত সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিমের আনারের মেয়ে মুমতারিন ফেরদৌস ডরিনের করা অভিযোগ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সন্ধানী প্রতিনিধি দলের সাক্ষাৎ

স্বাস্থ্যসেবা-স্বাস্থ্য শিক্ষায় নজরদারি অব্যাহত থাকবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

জুনের ২৩ দিনে প্রবাসী আয় ২০৫ কোটি ডলার

দ্রুত ন্যায়বিচার নিশ্চিত করাই আমাদের লক্ষ্য: প্রধান বিচারপতি

মামুনুল হকের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

কমছে পানি, বন্যা পরিস্থিতি আরও উন্নতির আভাস

পবিপ্রবিতে অংশীজনের অবহিতকরণ সভা

বিশ্বকাপ থেকে বাংলাদেশের আয় সাড়ে পাঁচ কোটি টাকা

ক্রিকেটার খালেদ মাসুদ পাইলটের মায়ের ইন্তেকাল

গোপন চুক্তি করলে এখন বিএনপি ক্ষমতায় থাকতো: ফখরুল

বেনজীরের পাসপোর্ট জালিয়াতিতে ৮ কর্মকর্তাকে দুদকের জিজ্ঞাসাবাদ

সুনীল অর্থনীতিকে আরও এগিয়ে নিতে সরকার বদ্ধপরিকর

গণপূর্তমন্ত্রীর সঙ্গে বুয়েট গ্রাজুয়েট ক্লাব নেতৃবৃন্দের সৌজন্য সাক্ষাৎ

প্রাথমিকে বড় পরিসরে ফিরতে যাচ্ছে মিড-ডে মিল

অপকর্ম নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করলেই জামায়াত-শিবির: রিজভী

কাঁঠালের বিচি দিয়ে স্পেশাল গরু ভুনা

নোবেল পাওয়ার আকাঙ্ক্ষা আমার নেই: প্রধানমন্ত্রী

দুই বছরে পদ্মা সেতুর আয় ১৬৪৮ কোটি টাকা: কাদের

তিস্তা প্রকল্প নিয়ে দুই দেশই প্রস্তাব দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর দেশের স্বার্থ আদায়ে ব্যর্থ: ফখরুল