ই-পেপার বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

বিজয়ের পুরো অর্থ আমাদের বুঝতে হবে

অনলাইন ডেস্ক
১৭ ডিসেম্বর ২০২২, ১১:২৫

এমন জাতি পৃথিবীতে আছে কিনা জানিনা আজ ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস সেই দিবসে মনটা এখন যেমন আছে তেমন তখন ছিল না।

ঐ সময় সবাই বিজয়ের আনন্দে মেতে উঠেছিল, সারাদিন কি করেছিলাম মনে নেই তবে আমাদের পরিবারের মুক্তিযোদ্ধা তৎকালীন (ক্যাপ্টেন) ভূঁইয়ার যুদ্ধের গল্প শুনতেই ব্যস্ত ছিলাম।

জিন্দাবাহারের বাড়িতে বাবার শোয়ার ঘরে ঘুমাচ্ছিলেন। মনে হচ্ছিল কত বছর যেন ঘুমাননি। পিস্তল গুলো টেবিলের ওপর। খাবার খাওয়ারও যেন তাড়া নেই।

আগের দিন রাতেও কারফিউ ছিল, ছিল অন্ধকার। আজ রাতে আর অন্ধকার থাকবে না। রাজাকার আলবদর রাস্তায় থাকবে না। আগের দিন রাতেও অর্থাৎ ১৬ই ডিসেম্বরের রাতেও ওরা ছিল না।

এমন জাতি পৃথিবীতে আছে কিনা জানিনা আজ ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস সেই দিবসে মনটা এখন যেমন আছে তেমনটি তখন ছিল না।

তখন সবাই বিজয়ের আনন্দে মেতে উঠেছিল, সারাদিন কি করেছিলাম মনে নেই তবে আমাদের পরিবারের বীর মুক্তিযোদ্ধা তৎকালীন (ক্যাপ্টেন) ভূঁইয়ার যুদ্ধের গল্প শুনতেই ব্যস্ত ছিলাম। জিন্দাবাহারের বাড়িতে বাবার শোয়ার ঘরে ঘুমাচ্ছিলেন।

বীর মুক্তিযোদ্ধারা ঘুমাচ্ছেন। মনে হচ্ছিল কত বছর যেন ঘুমাননি। পিস্তল গুলো টেবিলের ওপর। খাবার খাওয়ারও যেন তাড়া নেই।

আগের দিন রাতেও কারফিউ ছিল, ছিল অন্ধকার। আজ রাতে আর অন্ধকার থাকবে না। রাজাকার আলবদর রাস্তায় থাকবে না। আগের দিন রাতেও অর্থাৎ ১৬ই ডিসেম্বরের রাতেও ওরা ছিল না।

আমরা নির্ভয়ে কিছু যুবক জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু তোমার আমার ঠিকানা পদ্মা মেঘনা-যমুনা বলতে বলতে সেই বাবু বাজারের মোড়ে চলে গেলাম।

আমরাই ছিলাম। আশেপাশের থেকে তেমন কোনো মিছিল আমাদের সঙ্গে যোগ দেয়নি। তখনো ছিল মৃত্যু ভয়। অবাঙালীর একটি বড় অংশ তখনো ইসলামপুর পাটুয়াটুলির ব্যবসায়ী ছিল।

যতটুকু ধারণা তাদের অনেকেই পাকিস্তানের নীরব সমর্থক ছিল। আমাদের জিন্দাবাহারের বাড়ির পেছনে এক বোম্বের পরিবার তো জোরে বলাই শুরু করল সেভেনথ ফ্লিট আ গিয়া হেয়।

তাদের সে কি আনন্দ! সাধারণত যুদ্ধের পর খাবারের সংকট থাকে বিদ্যুৎ থাকে না পানি থাকে না রাস্তাঘাটে অরাজকতা থাকে। সেরকম কোনো কিছুই পরিস্থিতি হয়নি। সবই যেন স্বাভাবিক ছিল।

রেডিওতে মেজর হায়দারের কণ্ঠ শুনছিলাম। তিনি শৃঙ্খলা বজায় রাখার বিভিন্ন নির্দেশনা দিচ্ছিলেন। সাধারণত দেখা যায় যুদ্ধের পর খাবারের সংকট থাকে, সেটাও আমরা অনুভব করি নাই।

মাঝে মাঝে ভাবি আমাদের কষ্ট হয়েছে। যুদ্ধকালীন আরো কষ্ট হলে হয়তো আমরা একাত্তরের মর্মার্থ আরো গভীরভাবে উপলব্ধি করতে পারতাম। খুব সহজেই আমরা পরিবর্তিত হয়ে গিয়েছি।

বিএনপি নেতা ফখরুল বলেন, “পাকিস্তান আমল-ই নাকি ভালো ছিল”। এরকম আরো অনেকেই বলেন প্রকাশ্যেই বলেন। এখনো কোরিয়ান জাপানি চাইনিজদের মধ্যে এক ধরনের বৈরিতা আছে এই যুদ্ধ নিয়েইতো, আমরা তো বোধ হয় এর ব্যতিক্রম।

এই যে ধর্ষণ, হত্যা এত আগুন এত বুদ্ধিজীবী হত্যা এসব কিছু জেনেও কোনো অনুশোচনা আছে? নেই। ৯৫ হাজার সৈন্যের সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ন্যাক্কারজনক আত্মসমর্পণ-এই অপমান এখনো ভুলতে পারছে না।

এই বীরের জাতি বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ যেন দাঁড়াতে না পারে সেজন্য পদে পদে বাধা দেওয়া, সেই একাত্তরে দোসরদের মাধ্যমে গুজব ছড়ানো, বুদ্ধিজীবী হত্যা, সাংস্কৃতিক মুক্ত মনের মানুষদের হত্যা করা এখনো এদের এজেন্ডা।

তবে সুখের কথা যে, বাংলাদেশের তরুণ সমাজকে এরা বিভ্রান্ত করতে পারিনি। চেষ্টা করেছে এবং করেছিলোও।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা যদি দেশের হাল না ধরতেন এই অর্জন ধুলিস্যাৎ হয়ে যেত, হয়তো বা আরেক আফগানিস্তান হত না হয় সোমালিয়া হত। বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী অনেকেই এই প্রজন্মকে প্রভাবিত করেছে বলে মনে হয়।

বিজয় আমাদের হয়েছে কিন্তু এই বিজয়ের পুরো অর্থ আমাদের বুঝতে হবে আমাদের সত্যিকারের বাঙালি হতে হবে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের মত মনের অধিকারী হতে হবে।

লেখক: অধ্যাপক ড. কামাল উদ্দিন আহমদ

ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক টানাপোড়েনে চীন ও ইইউ

দুই বছর আগেই বিশ্বজুড়ে চীনের প্রভাব বিস্তার ঠেকাতে ৩০ হাজার কোটি ইউরোর বিশাল বৈশ্বিক বিনিয়োগ

সাহিত্য-সমাজ ও সংস্কৃতির পুরোধা কাজী নজরুল ইসলাম

কাজী নজরুল ইসলাম (১৮৯৯-১৯৭৬)  বাংলাদেশের জাতীয় কবি এবং অবিভক্ত বাংলার সাহিত্য, সমাজ ও সংস্কৃতি ক্ষেত্রের

ইরানের প্রেসিডেন্ট রাইসির মৃত্যু ও দুই শিবিরের প্রতিক্রিয়া

ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হওয়ার পর দেশটির সুপ্রিম লিডার আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি

বাংলাদেশের তৃণমূলের আর্থিক উন্নয়ন অগ্রগামী

অর্থনৈতিক সাফল্য একটি জাতির জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যে জাতির অর্থনৈতিক ভিত্তি যত শক্তিশালী, সে জাতি
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

দেশের জন্য নদীর ভূমিকা মানুষের শিরা-উপশিরার মত

দুই-তিন মাস ধরে এমপি আনারকে খুনের পরিকল্পনা হয়

নৌপথে গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানোর নির্দেশ প্রতিমন্ত্রীর

মেক্সিকোতে নির্বাচনী প্রচারণার মঞ্চ ভেঙে শিশুসহ নিহত ৯

সরকারের এই নীতি কর্তৃত্ববাদী শাসনের চরম দৃষ্টান্ত: রিজভী

আনার অপকর্মে জড়িত কি না তদন্তে বেরিয়ে আসবে: কাদের

নিজ শহর মাশহাদে দাফন করা হবে রাইসিকে

ফিলিস্তিনকে 'একতরফা স্বীকৃতি' দেওয়ায় বাইডেনের বিরোধিতা

অবশেষে ট্রাম্পকেই সমর্থন দিলেন নিকি হ্যালি

ভিয়েতনামের নতুন প্রেসিডেন্ট তো লাম

‘দণ্ড মাথায় নিয়ে ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ আইনের দৃষ্টিতে সমীচীন নয়’

খোলামেলা ফটোশুটে প্রিয়াঙ্কার উত্তাপ

বাংলাদেশ ব্যাংক সমবায় সমিতিতে পরিণত হয়েছে: ড. সালেহ উদ্দিন

এমপি আনার হত্যাকাণ্ডে জড়িত কে এই শিলাস্তি রহমান

শান্তিরক্ষা মিশনে নিয়োগ নিয়ে সতর্ক জাতিসংঘ

ইরানের রাষ্ট্রদূতের কার্যালয়ে গিয়ে শোক প্রকাশ করলেন ফখরুল

কারও কোনো ক্ষতি করিনি, চেষ্টাও করিনি: ড. ইউনূস

যে ৫ খাবার আপনার ওজন কমাবে

কিরগিজের মন্ত্রীকে বাংলাদেশিদের নিরাপত্তা নি‌শ্চিতের অনুরোধ

শাহজালাল বিমানবন্দরে ৫ কোটি টাকার স্বর্ণসহ আটক ২