‘ফখরুলসহ বাকিরা ৩০ এপ্রিলের মধ্যে শপথ নেবেন’

0

জনগণের রায়ের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ নির্বাচিত বাকিরা ৩০ এপ্রিলের মধ্যে শপথ নেবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ।

বিএনপিকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, বিএনপির একজন বৃহস্পতিবার শপথ নিয়েছেন। জনগণের রায়ের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে আগামী ৩০ তারিখের মধ্যে আপনারাও শপথ নেবেন বলে আশা করি।

শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ মহিলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত আসনে মনোনীত চার মহিলা সংসদ সদস্য ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা, জান্নাতুল বাকিয়া, নার্গিস রহমান ও শবনম জাহান শীলাকে সংবর্ধনা দেয়া হয়।

অনুষ্ঠানে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে উদ্দেশ করে হানিফ আরও বলেন, মির্জা ফখরুল আপনি কথায় কথায় গণতন্ত্রের কথা বলেন; কিন্তু যে জনগণ আপনাদের ভোট দিয়েছে সেই জনগণের প্রতি আপনি শ্রদ্ধা দেখাতে পারছেন না। সেই জনগণ থেকে সফলতা নিয়ে সেই জনগণকে আপনি অবজ্ঞা করছেন।

তিনি বলেন, আপনারা যদি ভেবে থাকেন শপথ না নিয়ে এভাবেই আপনারা দায়িত্ব পালন করবেন তাহলে এটি ভুল হবে। আপনারা যদি শপথ না নেন। সংসদে যোগদান না করেন। তাহলে ওই এলাকার জনগণ আপনাদের আর ভোট দেবে না এবং তা ভোটারদের প্রতি অসম্মান করা হবে।

শ্রীলংকার বোমা হামলার ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে আওয়ামী লীগের এই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, ধর্মের নাম করে উগ্রবাদ সহ্য করা হবে না। সন্ত্রাস এবং জঙ্গিবাদে যারা জড়িত তারা মানবতার শত্রু, সমাজের শত্রু, দেশের শত্রু। এদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

তিনি বলেন, এই দেশের প্রথম সন্ত্রাসে শুরু হয়েছে ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে হত্যার করা মধ্য দিয়ে। এটি সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ছিল। জাতির পিতাকে হত্যার মাধ্যমে এ দেশ ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করার চেষ্টা করা হয়েছিল। খালেদা জিয়া যতবার ক্ষমতায় এসেছে, প্রত্যেকবার হামলা হয়েছে শেখ হাসিনার ওপর, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীর ওপর।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে মন্তব্য করে হানিফ বলেন, শেখ হাসিনা এই দেশের মানুষের কাছে আস্থার জায়গা। দেশের মানুষ বিশ্বাস করে তিনি (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) ছাড়া দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার মতো কেউ নেই। তাই দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য সবাইকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ মহিলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সাবেরা বেগমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাফিয়া খাতুন, সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা বেগম ক্রিক প্রমুখ।jugantor

(Visited 32 times, 1 visits today)

Leave A Reply

Your email address will not be published.