রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদের নেতৃত্বে নির্বাচনকালীন সরকার?

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা হবে আগামী মাসে। আর চলতি বছরের ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে অনুষ্ঠিত হতে পারে নির্বাচন।কয়েক দিন আগে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময়ের জন্য রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদের সঙ্গে দেখা করেন ড. কামাল হোসেন। রাষ্ট্রপতিকে নির্বাচনকালীন সরকারের প্রধান হিসেবে ড. কামাল ও তাঁর সমমনাদের কোনো আপত্তি থাকবে না বলেই মনে করা হয়।
দেশের অন্যতম বিরোধী দল বিএনপি দীর্ঘদিন যাবৎ নির্দলীয়, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবি জানিয়ে আসছে। সম্প্রতি রাজনীতির তৃতীয় শক্তি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করা যুক্তফ্রন্ট এবং জাতীয় ঐক্যও নির্বাচনকে সামনে রেখে নির্দলীয় ও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন করার জন্য প্রস্তাব করেছে। তবে দেশের সাংবিধানিক কাঠামোর মধ্যে থেকেই নির্দলীয় সরকার ব্যবস্থা প্রবর্তন করতে চাইছে জাতীয় ঐক্যের দলগুলো। এই ব্যাপারে জাতীয় ঐক্যের পক্ষ থেকে একটি রূপরেখাও তৈরি করা হচ্ছে।

সংবিধান মেনে কীভাবে নির্দলীয় ও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের ব্যবস্থা করা যায় সে বিষয়ে গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে রূপরেখা তৈরি করছেন কয়েকজন সিনিয়র আইনজীবী। এই রূপরেখা অনুযায়ী, রাষ্ট্রপতির নেতৃত্বে গঠিত ও পরিচালিত হবে নির্বাচনকালীন সরকার।
জাতীয় ঐক্যের রূপরেখা অনুযায়ী, নির্বাচনকালীন সরকারে বর্তমান দলীয় প্রধানমন্ত্রী অকার্যকর হয়ে যাবেন। প্রধানমন্ত্রীর হাতে কোনো দপ্তর বা প্রায়োগিক কোনো ক্ষমতা থাকবে না। তবে প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ জাতীয় কোনো দাবি জাতীয় ঐক্যের নেই। বরং যখনই নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করা হবে তখন সচিবদের নিয়ন্ত্রণসহ অন্যান্য নির্বাহী ক্ষমতা রাষ্ট্রপতির হাতে দিয়ে দেওয়ার প্রস্তাব করেছে দলটি। অর্থাৎ রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদের নেতৃত্বেই পরিচালিত হবে নির্বাচনকালীন সরকারের কার্যক্রম, এক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রীর ভূমিকা হবে গৌণ।

এছাড়া গণ-প্রতিনিধিত্ব আদেশ (আরপিও)-১৯৭২ অনুযায়ী, যারা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন নির্বাচন পূর্ব সময়ে তাঁদের ক্ষমতার বলয় সংকুচিত হয়ে যায়, তাঁরা বাড়তি কোনো সুযোগ-সুবিধা ভোগ করেন না।
যেহেতু আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একাদশ জাতীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন, সেহেতু সাংবিধানিকভাবেই তাঁর সব ক্ষমতা সংকুচিত হয়ে যাবে এবং রাষ্ট্রপতিই সরকারের সকল দায়িত্ব পালন করবেন। এমন প্রস্তাব রেখেই নির্বাচনকালীন নির্দলীয় ও নিরপেক্ষ সরকারের রূপরেখা তৈরি করছে জাতীয় ঐক্য।